অ্যান্ডড্রয়েড রুটঃ সুবিধা এবং অসুবিধা | পিসি হেল্পলাইন বিডি (PC Helpline BD)
বিজ্ঞাপন
Homeআই টি সংবাদঅ্যান্ডড্রয়েড রুটঃ সুবিধা এবং অসুবিধা

2 মাস আগে (অক্টোবর ২৬, ২০১৬) 226 বার দেখা হয়েছে

অ্যান্ডড্রয়েড রুটঃ সুবিধা এবং অসুবিধা

Category: আই টি সংবাদ | Tags: , , , , , by

বিজ্ঞাপন
Domain Hosting Offer

অ্যান্ডড্রয়েড ডিভাইসে রুটঃ আসলে ব্যাপার টা কি?

যদি অল্প কথায় বলি রুট ব্যাপার টি হচ্ছে আপনার প্রিয় ডিভাইসটির অ্যাডমিন প্রিভিলেজ হ্যাক করা। হ্যাঁ, শব্দটি হ্যাক এবং রুট এর মাধ্যমে আপনি আপনি আপনার ডিভাইসটির মূল কন্ট্রোল হ্যাক করতে চলেছেন। আপনি যখন বাজার থেকে আনকোরা নতুন সেটটি কিনে আনেন তখন ব্যাপার টা এরকম থাকে যে আপনার ইউজার প্রিভিলেজ হচ্ছে গেসট ইউজার এর মত। আপনি সবকিছুই করতে পারবেন কিন্তু সিস্টেম ফাইল মডিফাই করতে পারবেন না।

রুট করবার ফলে আপনি অ্যান্ডড্রয়েড এর রুট নামক ফোল্ডার টির কন্ট্রোল নিয়ে তার সিস্টেম ফাইল পরিবর্তন করতে পারবেন এবং এর মাধ্যমে স্টক অ্যান্ডড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমটিকে আপনি পরিবর্তন করে নিতে পারবেন।

রুট করার সুবিধা
রুট করলে আপনি প্রথম যে সুবিধাটি ভোগ করতে পারছেন তা হচ্ছে যেকোনো বিশেষ অ্যাপস আপনি আপনার সেট এ ইন্সটল করে চালাতে পারবেন। আপনি রুট করার পর ইচ্ছা হলে অপ্রয়োজনীয় সিস্টেম অ্যাপস ডিলিট করে দিতে পারবেন। ভার্চুয়াল মেমোরি বাড়িয়ে নিতে পারবেন এবং সেই সাথে অ্যাপস স্টোরের সব পেইড গেমস ও চালাতে পারবেন।

নিচ থেকে টুল টা নামাইয়া নেন Root master

যদি এই সফট টা দিয়ে রুট না হয় তবে নিচের সফটওয়্যার টা নামান Framrooot.apk

রুট অইছে কিনা চ্যক করার জন্য নিচের সফটওয়্যার টা ব্যবহার করুন Root checker.apk

কাস্টম রম ইন্সটল
আজকাল বিভিন্ন ফোরাম এবং ব্লগ সাইট গুলিতে গেলেই দেখা মেলে নানাবিধ অ্যান্ডড্রয়েড কাস্টম রম। সাধারণত অ্যান্ডড্রয়েড নিয়ে আগ্রহী ইউজাররাই এই সকল রম নিয়ে গবেষণা করেন। এই কাস্টম রমগুলির সবথেকে বড় সুবিধা হল এগুলি বিভিন্ন ভাবে টিউন করা যার ফলে পারফরম্যান্স স্টক রম থেকে অনেক সময় বেশ উন্নত থাকে। অ্যান্ডড্রয়েেডর সবচেয়ে বড় দুর্বলতা মানা হয় তার ব্যাটারিকে এবং কাস্টম রম অনেক সময় এই দুর্বলতা দুর করতে পারঙ্গম।

কাস্টম কারনেল ব্যবহার

অ্যান্ডড্রয়েড ডিভাইস চালানর মূলে রম থাকলেও, কাজগুলোর কম্যান্ড করে কারনেল ফাইল। আপনি যখন আপনার ফোনে টাচ করেন বা ফোনটিকে বিভিন্ন অ্যাঙ্গেল থেকে ঘোরান, তখন কার্নেল নির্দেশ করে অ্যাপ্লিকেশানকে। আপগ্রেড কার্নেল ব্যবহার করে আপনার ফোনের পারফরমান্স বাড়াতে পারেন।

ব্যাটারি এবং সিপিউ স্পিড
রুট করার পরে যদি কাস্টম রম ইন্সটল করেন তবে সিপিউ কিভাবে ব্যবহার করবেন তার কিছু অপশন পাবেন যেমন Governor, Performance ইত্যাদি। এগুলি ব্যাবহার করলে আপনার ফোনের স্পিড সর্বনিম্ন ব্যাটারি খরচে পেতে পারেন। এছাড়া Overclock এবং Underclock এর মাধ্যমে সিপিউ স্পিড মেন্টেন করতে পারবেন।(Further reading: www.xda-developers.com)
আরো কিছু অ্যাপস আছে যেগুলো দিয়ে আপনি ইচ্ছা মত সিপিউ ইউসেজ কন্ট্রোল করতে পারবেন।
• Set CPU
• No-frills CPU
• Tegrak Overlock

ইন্টারনাল Storage বাড়ানো
যাদের ফোনে ইন্টারনাল মেমোরি কম তারা চাইলে রুট করার মাধ্যমে যেকোনো অ্যাপ্লিকেশান SD কাের্ড ট্রান্সফার করে নিতে পারবেন। কিন্তু এই কাজটির জন্য রুট করা আবশ্যক। কিছু কিছু অ্যাপ্লিকেশান Storage ট্রান্সফার করার ক্ষেত্রে স্বাধীনতা দিলেও অনেক অ্যাপস আছে যেগুলো রুট করা ছাড়া ট্রান্সফার একরকম অসম্ভব। যেমন আপনি চাইছেন আপনার সেটে জেলিবিন আপডেট করবেন কিন্তু তার জন্য আপনি সেটের ডাটা ব্যাকআপ নিতে চাইছেন। এখন আপনি যদি ব্যাকাপ নেবার জন্য কোন বিশেষ অ্যাপস ইন্সটল করতে চান তার জন্য অবশ্যই আপনার সেটটিকে রুট করে নিতে হবে।

ব্যাকআপ তৈরি

রুট করার সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে ব্যাকআপ তৈরি করা যেখান থেকে আপনি পরবর্তী যেকোনো সময়ে সিস্টেম রিস্টরের মত পূর্বের অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে পারবেন। আর এটা বলা বাহুল্য যে সেট রুট না করলে আপনি কখনই সম্পূর্ণ ব্যাকআপ নিতে পারবেন না। আর এই ব্যাকআপটি এমনই যে আপনি যে অবস্থা থেকে ব্যাকআপ নিয়েছেন পরবর্তীতে ঠিক সেই অবস্থায় ফিরে যেতে পারবেন আপনার অ্যাপ্লিকেশান সেটিংস্‌ সহ।

রিস্ক ইন রুটিং
রুটিং এর রয়েছে নানাবিধ ঝামেলা এবং অসুবিধা। সাধারনত এক্সপার্টরা রুটিং করার পরামর্শ দেননা। আপনি যদি জানেন আপনার সেট রুট করা কেন দরকার, সেক্ষেত্রে আপনি রুট করার কথা ভাবতে পারেন।
ব্রিকিং অথবা ব্রিক দ্যা ডিভাইস
আপনি যদি রুট করতে গিয়ে আপনার ডিভাইসে ভুল রম ইন্সটল করেন যা আপনার ফোনের সাথে কম্প্যাটিবল নয় বা রুট প্রসেসের কোন ধাপ অসাবধানতায় মিস করেছেন অথবা রুট প্রসেসের মাঝপথে বিদ্যুৎ বিঘ্ন ঘটলে আপনার প্রিয় সেটটি একটি brick অথবা ইটের টুকরায় পরিনত হবে। Brick দুইভাবে হতে পারে, সফট ব্রিক অথবা হার্ড ব্রিক। সফট ব্রিকের ক্ষেত্রে তাও একটু আশা আছে, হার্ড ব্রিকের ক্ষেত্রে সেটাও ক্ষীণ।

ওয়ারেিন্ট নষ্ট
সাধারনত কোন কোম্পানি চায়না তাদের ডিভাইসটা অন্যকেও কাসটমাইজ করুক। যার কারনে ওয়ারেন্টি থাকাকালীন সময়ে রুট করলে ডিভাইসের ওয়ারেন্টি ভয়েড হয়ে যেতে পারে।

স্লোস্পিড
স্পিড বাড়ানো যদিও রুট করা মূল উদ্দেশ্য, তারপরও অনেক সময় ডিভাইসের সমস্যার কারনে রুট করার ফলে স্পিড কমে যেতে পারে। এছাড়া ভাইরাস নামক যন্ত্রণাতো আছেই। কিন্তু কিছু পেতে গেলে কিছু ছাড় তো দিতেই হয়।

About 12

co-admin

I am front end website developer. My experience in HTML, CSS, JavaScript, So many HTML, CSS and JavaSropt Framework, WordPress, PSD To HTML. I like any IT related subject. The rest I'll explain later.

Related Posts

PC Helpline BD Facebook